মৌলভীবাজার পৌরসভা নির্বাচনে যারা নির্বাচিত হয়েছেন।

পল্লীকণ্ঠ প্রতিনিধিঃ  মৌলভীবাজার পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনিত (নৌকা মার্কা) প্রতিক নিয়ে মোঃ ফজলুর রহমান দ্বিতীয় বারের মত ১৩ হাজার ৬ শত ৯৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

তার নিটকতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী অলিউর রহমান নির্বাচনের একদিন পূর্বে নির্বাচন বয়কট করে সড়ে দাড়ানোর ঘোষনা দেওয়ার পরেও ধানের শীর্ষে ৩ হাজার ৭ শত ৩০টি ভোট পড়েছে।

 

কাউন্সিলর পদে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন

১নং ওয়ার্ডেঃ‌- এ্যাডভোকেট পার্থ সারথী পাল উট পাখি মার্কায় ১৬৬৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী শ্বাশ্বাত ব্রক্ষ রনি পাঞ্জাবী মার্কায় পেয়েছেন ৮৪৩ ভোট।

 

২নং ওয়ার্ডেঃ-  আসাদ হোসেন মক্কু উটপাখি মার্কায় ১১৩৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী মোঃ পিন্টু আহমদ পাঞ্জাবী মার্কায় পেয়েছেন ১০৮ ভোট।

 

৩নং ওয়ার্ডেঃ- মোঃ নাহিদ হোসেন টেবিল ল্যাম্প মার্কায় ১০৯৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী মোঃ রাসেল আহমদ উটপাখি মার্কায় পেয়েছেন ৮৪৪ ভোট।

 

৪নং ওয়ার্ডেঃ- সালেহ আহমদ পাপ্পু পাঞ্জাবী মার্কায় ৬৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম  প্রতিদন্ধী মনবীর রায় উট পাকি মার্কায় পেয়েছেন ৬১৯ ভোট।

 

৫নং ওয়ার্ডেঃ- ফয়সল আহমদ টেবিল ল্যাম্প মার্কায় ৯৩৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী দেলোয়ার হোসেন পাঞ্জাবী মার্কায় ৯১৪ ভোট পেয়েছেন।

 

৬নং ওয়ার্ডেঃ মোঃ জালাল আহমদ উটপাখি মার্কায় ৮১৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী শামীম আহমদ পাঞ্জাবী মার্কায় ৭১২ ভোট পেয়েছেন।

 

৭নং ওয়ার্ডেঃ- আনিসুজ্জামান (বায়েছ) ফাইল কেভিনেট মার্কায় ১০৯২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী সরোয়ার মজুমদার পাঞ্জাবী মার্কায় পেয়েছেন ৯৮০ ভোট।

 

৮নং ওয়ার্ডেঃ-  সৈয়দ সেলিম হক উটপাখি মার্কায় ১২৫১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী সাজ্জাদ আহমদ টেবিল ল্যাম্প মার্কায় পেয়েছেন ৮১৬ ভোট। এবং

 

৯নং ওয়ার্ডেঃ-  বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় মোঃ মাসুদ আহমদ নির্বাচিত হয়েছেন।

 

সংরক্ষিত ৩টি নারী কাউন্সিলর পদে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন-

১নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডঃ- নাজমা বেগম আনারস মার্কা নিয়ে ২৩২৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী শ্যামলী সুত্রধর জবা ফুল মার্কায় ১৬৬৪ ভোট পেয়েছেন।

২নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডেঃ- জাহানারা বেগম চশমা মার্কায় ৩০৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী শ্যামলী দাস পুরকায়স্থ আনারস মার্কায় পেয়েছেন ২০৯৬ ভোট।

৩নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডেঃ- জিম্মি আক্তার,(স্বতন্ত্র প্রার্থী) আনারস মার্কায় ২০২৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্ধী শিল্পী আক্তার চশমা মার্কায় পেয়েছেন ১৮৫০ ভোট।

 

সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহন শুরু হলে ভোটারা শান্তিপূর্ণ ভাবে ও নির্বিঘ্নে বিকাল চার ঘটিকা পর্যন্ত  ভোট গ্রহণ করা হয়। মোট ১৮টি ভোট কেন্দ্রে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা সংবাদ পাওয়া যায়নি। আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক তৎপরতার পাশাপাশি ভ্রাম্যমান আদালতের টহল অব্যাহত ছিলো।

ভোট শুরু হওয়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি কিছু থাকলেও সময় গড়িয়ে যাওয়ার সাথে সাথে ভোট কেন্দ্র গুলো ভোটার শূন্য হয়ে পড়েছিল। এর কারন হিসাবে মানুষের মধ্যে একটা শঙ্কা ছিল অপ্রীতিকর কোন গঠনা গঠতে পারে।

কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অনেক বেশি তৎপর থাকায় ভোটকেন্দ্রে বড় ধরনের কোন গঠনা  ঘটেনি। ভোটারদের বিরম্বনা এড়াতে ১৪টি ভোট কেন্দ্র থেকে বাড়িয়ে ১৮টি ভোট কেন্দ্র করা হয়।