৭ আগষ্টের মৌলভীবাজারের শহরে টিকাদান কর্মসুচি

রুমেন আহমদঃ স্টাফ রিপোর্টারঃ
অদৃশ্য একটি ভাইরাস যখন সারা বিশ্বকে কাবু করে রেখেছে,, তখন সারা বিশ্বে আক্রান্ত ও মৃত্যু লাখে উপর চলে যাওয়ায়,,, বিশ্বের সব দেশের সরকার তাথক্ষনিক ভ্যাকসিন আবিষ্কারে লেগে পড়েন,, অনেক দিন যাওয়ার পর বিশ্বের কিছু দেশ ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে সক্ষম হয় ,,
এর পর করোনায় বিভিন্ন রুপ ধারন করতে দেখা গেলে বিজ্ঞানীরা চিন্তায় পরে জান,, এই ভ্যাকসিন গুলার উপর আরও পরীক্ষা নিরিক্ষা করে যখন ফল ভালো দেখেন তখন বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থা তা অনুমতি দেয়,, তখন সারা বিশ্বে ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য উঠে পরে লেগেছে,,
এর পর যখন ভারতের ডেল্টা ভেরিয়েন্স নামের করোনা কয়েকটি দেশে নতুন করে ছড়িয়ে পরে , আর এই ভাইরাস বাংলাদেশে ধরা পরে ও আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তেই থাকে,, তখন বাংলাদেশ সরকার একটার পর একটা লকডাউন দিয়ে ও নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থ হয়, তখন ১৬ কোটি মানুষ কে গণটিকার আওতায় আনার চিন্তা ভাবনা নেয় সরকার,, এর পর ২৫ বসর বয়স থেকে ১ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় আনা হবে বলে বলা হয় ,, এর পর হঠাৎ জানা যায় টিকা সংকটে পড়েছে হয়তো সবাই টিকা না পাওয়ার ও আশা আছে,, তাই কিছু মানুষ কে টিকা প্রদান করা হয় ,,টিকার ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকার বিদেশ থেকে আরো টিকা আনার চেষ্টা চালাচ্ছে,, বাংলাদেশ সরকার ১৬ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় আনার চেষ্টা চালাচ্ছেন,,
৭ আগষ্ট শনিবার সীমিত ভাবে সরকার সারা বাংলাদেশে আবার ও টিকা দেওয়া শুরু করেছে আর ৭ দিন বিরতি দিয়ে ১৪ তারিখ টিকা দেওয়ার প্রস্তুতি নিবে বলে জানিয়েছে সরকার,,
শনিবার মৌলভীবাজার পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে শুরু হয়েছে টিকাদান কর্মসুচি,,৭ নং ওয়ার্ডে হাফিজা খাতুন উচ্চ বিদ্যালয়ে দেখা গেছে টিকা নেওয়ার জন্য উৎসুখ জনতা ঢল, এতে নেতৃত্ব্য দেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক, পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান ও কাউন্সিলরা,,,